পথশিশু

পথশিশুদের বিনামূল্যে জন্ম নিবন্ধন ও শিশু অধিদপ্তর চালু দাবি

যত দ্রুত সম্ভব পর্যাপ্ত জনবল নিয়োগের মাধ্যমে শিশু অধিদপ্তরের কার্যক্রম পূর্ণাঙ্গভাবে শুরু করা এবং পথশিশু কার্যক্রম পরিচালনা, পর্যবেক্ষণ, সমন্বয়ের জন্য আলাদা ডেস্ক স্থাপন করার দাবি জানিয়েছে পথশিশুদের নিয়ে কর্মরত ব্যক্তি ও সংগঠনসমূহের নেটওয়ার্ক- স্ট্রীট চিলড্রেন এক্টিভিস্টস নেটওয়ার্ক (স্ক্যান)।

সোমবার (১৫ জুন) নেটওয়ার্কটির সভাপতি মো. জাহাঙ্গীর হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক মো. মনিরুজ্জামান মুকুল স্বাক্ষরিত বাজেট পরবর্তী এক প্রেসনোটে এ দাবি জানানো হয়।

পথশিশুদের সংখ্যা নির্ণয়ে জরিপ পরিচালনার উদ্যোগ ও জরিপের তথ্যের আলোকে কর্মসূচি গ্রহণ করা দরকার বলে উল্লেখ করেন তাঁরা। এছাড়া মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অধীন পরিচালিত পথশিশুদের পুনর্বাসন কার্যক্রমের কর্ম-এলাকা বৃদ্ধির মাধ্যমে সুবিধাবঞ্চিত শিশুসহ পথশিশুদের বিনামূল্যে জন্ম নিবন্ধনের ব্যবস্থা নিশ্চিত করার জোর দাবি জানানো হয় প্রেসনোটে।

তাঁরা বলেন, পথশিশু পুনর্বাসনে একটি কর্ম-পরিকল্পনা প্রণয়ন করা ও সরকারি-বেসরকারি সংগঠনের সমন্বয়ে একটি কৌশলগত কমিটি করে প্রয়োজনে পথশিশুদেরকে যুক্ত করা একান্ত প্রয়োজন।

উল্লেখ্য, মোট ৭২টি এনজিও, সিবিও, স্বেচ্ছাসেবী ও পেশাজীবীর সমন্বয়ে সারা বাংলাদেশে কাজ করে আসছে স্ক্যান। ২০১৪ সাল থেকে পথশিশুদের সুরক্ষা ও উন্নয়নে প্রায় ৪০% শিশুর জন্য একটি আলাদা অধিদপ্তর প্রতিষ্ঠার দাবি জানিয়ে আসছে নেটওয়ার্কটি।

জাতীয় বাজেট ২০২০-২০২১ ঘোষণায় অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল শিশু অধিদপ্তর প্রতিষ্ঠার পরিকল্পনা গ্রহণ করার কথা উল্লেখ করেছে। এছাড়া শিশু-কল্যাণ নিশ্চিত করতে সকল জেলায় শিশু কমপ্লেক্স নির্মাণ ও সকল উপজেলায় শিশু দিবাযত্ন কেন্দ্র স্থাপনের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।

স্ক্যান বাংলাদেশের দাবির সাথে একাত্মতা ঘোষণা করে ২০১৪ সাল থেকে অনুপ্রেরণা যুগিয়েছেন সাবেক মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি (এমপি), ডেপুটি স্পিকার এডভোকেট ফজলে রাব্বী মিয়া (এমপি), শিশু অধিকার বিষয়ক সংসদীয় ককাস সভাপতি শামসুল হক টুকু (এম পি) এবং শিশু অধিকার সুরক্ষায় বাংলাদেশে কর্মরত জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সংগঠনসমূহ।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close